রাঙামাটি । রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ , ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

ব্রেকিং

প্রকাশিত: ১৩:০৪, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

ঢাকা-চট্টগ্রাম বিরতিহীন ট্রেন

সময়সূচিতে আসছে পরিবর্তন সুবর্ণ, সোনার বাংলা ও তূর্ণার

সময়সূচিতে আসছে পরিবর্তন সুবর্ণ, সোনার বাংলা ও তূর্ণার

ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের বিরতিহীন ট্রেন সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও সোনার বাংলা এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচিতে পরিবর্তন আসছে। জনপ্রিয় এই রুটে যাত্রীদের চাহিদার শীর্ষে থাকায় নতুন আরেকটি নন স্টপ ট্রেন চালুর করছে রেলওয়ে। ফলে বর্তমানে চলমান দুটি ট্রেনের পাশাপাশি এই রুটে রাতের তূর্ণানীশিতা ট্রেনের সূচিতেও পরিবর্তন আসবে। রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের পরিবহন বিভাগ থেকে রেল ভবনে নতুন সূচির একটি প্রস্তাব পাঠানো হচ্ছে। ডিজি দপ্তর থেকে নির্দেশনা জারির পর নতুন সময়সূচি কার্যকর হবে। জানা

গেছে, বর্তমানে ঢাকা থেকে সোনার বাংলা সকাল ৭টায় এবং সুবর্ণ এক্সপ্রেস বিকাল সাড়ে ৪টায় ছাড়ে। সোনার বাংলা দুপুর ১২টা এবং সুবর্ণ রাত সাড়ে ৯টায় চট্টগ্রাম পৌঁছে। একইভাবে সকাল ৭টায় চট্টগ্রাম থেকে সুবর্ণ ও বিকাল ৫টায় সোনার বাংলা ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। সুবর্ণ দুপুর ১২টা ২০ মিনিট এবং সোনার বাংলা রাত ১০টায় ঢাকা পৌঁছে।

প্রস্তাবিত নতুন সূচি অনুযায়ী সোনার বাংলা চট্টগ্রাম থেকে বিকাল সাড়ে ৪টায় ছেড়ে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে ঢাকা পৌঁছবে। নতুন বিরতিহীন ট্রেনটি রাত সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম ছেড়ে যাবে; ঢাকা পৌঁছবে ভোর ৪টা ৪০ মিনিটে। সুবর্ণ এক্সপ্রেস সকাল ৭টায় ছেড়ে দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে ঢাকা পৌঁছবে। একইভাবে সুবর্ণ এক্সপ্রেস ঢাকা কমলাপুর স্টেশন থেকে বিকাল সাড়ে ৪টায় ছেড়ে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছবে। নতুন বিরতিহীন (৮০৫) ট্রেনটি ঢাকা থেকে রাত সাড়ে ১১টায় ছেড়ে ভোর ৪টা ৪০ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছবে। সোনার বাংলা সকাল ৭টা ঢাকা থেকে ছেড়ে দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছবে।

৭৪১ নম্বর তূর্ণানীশিতা ট্রেনটি চট্টগ্রাম থেকে রাত ১১টার পরিবর্তে ১১টা ৫৫ মিনিটে এবং ঢাকা থেকে রাত সাড়ে ১১টার পরিবর্তে ১১টা ৫৫ মিনিটে ছেড়ে যাবে। এসব ট্রেনের সময়সূচি পরিবর্তনের কারণে বিভিন্ন রুটে চলাচলরত ট্রেনসমূহের সময়সূচিতে আংশিক পরিবর্তন হতে পারে বলে প্রস্তাবনায় উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রস্তাবিত সূচিতে চট্টগ্রাম থেকে সোনার বাংলার সাপ্তাহিক বন্ধের দিন রাখা হয়েছে মঙ্গলবার, নতুন ট্রেনের মঙ্গলবার, সুবর্ণ এক্সপ্রেসের বুধবার। ঢাকা থেকে সুবর্ণ ও নতুন ট্রেনের সোমবার এবং সোনার বাংলার মঙ্গলবার।

রেল কর্মকর্তারা জানান, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে বর্তমানে দুটি ননস্টপ ট্রেন চালু রয়েছে। ১৯৯৮ সালে সুবর্ণ এবং ২০১৬ সালে চালু হয় সোনার বাংলা। ট্রেনের রেকগুলো ঢাকা-চট্টগ্রামের শেডে পরবর্তী যাত্রার অপেক্ষায় থাকে। এই রেকগুলোকে অলস বসিয়ে না রেখে এখন নতুন ননস্টপ সার্ভিস চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। সে অনুযায়ী পূর্বাঞ্চলের পরিবহন বিভাগ থেকে প্রস্তাবনা পাঠানো হচ্ছে।

রাজধানী ঢাকার সঙ্গে বন্দর নগরী চট্টগ্রামের যাতায়াত সহজ করতে রাতে বিরতিহীন ট্রেন চালুর দাবি দীর্ঘদিনের। গ্রাহক চাহিদা এবং রেলের আয় বাড়াতে রাতে এক জোড়া বিরতিহীন ট্রেন চালুর সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে রেলওয়ে। সুবর্ণ ও সোনার বাংলা এক্সপ্রেস ট্রেনের রেক (যাত্রীবাহী কোচ, পাওয়ার কার, খাবার গাড়িসহ ১৪ থেকে ১৮ বগির সমন্বয়) দিয়ে চালানো হবে নতুন এই সার্ভিস।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের পরিবহন বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, করোনাপরবর্তী বিশেষ করে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পর পরিবহন খরচ বাড়ায় ট্রেনে যাত্রীদের চাহিদা বেড়েছে। ফলে নতুন ট্রেন পরিচালনায় রাজস্ব আয়ও বাড়বে। সামগ্রিক বিষয় বিবেচনায় ট্রেন বৃদ্ধির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন আমাদের সময়কে বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে সুবর্ণ ও সোনার বাংলা ট্রেনের আদলে রাতে এক জোড়া বিরতিহীন ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে কখন থেকে চলাচল করবে তা মন্ত্রণালয়ে সিদ্ধান্তের পর মন্ত্রী মহোদয় আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করবেন। নতুন বিরতিহীন ট্রেনের কারণে সুবর্ণ ও সোনার বাংলা ট্রেনের সময়সূচিতে পরিবর্তন আসছে। আমরা একটি প্রস্তাবনা পাঠাচ্ছি।