রাঙামাটি । মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪ , ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

নিউজ ডেস্কঃ

প্রকাশিত: ১১:৪৬, ২৩ এপ্রিল ২০২৪

সম্প্রীতি বাংলাদেশের সভা

​​​​​​​মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিবনগর সরকার নিয়ে গবেষণার আহ্বান

​​​​​​​মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিবনগর সরকার নিয়ে গবেষণার আহ্বান

দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষক নেতারা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ও স্বাধীনতা অর্জনে মুজিবনগর সরকারের ভুমিকা নিয়ে আরো ব্যাপক গবেষণার আহ্বান জানিয়েছেন। একই সঙ্গে সঠিক ইতিহাস জানতে শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

সোমবার (২২ এপ্রিল) সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আর সি মজুমদার আর্টস অডিটেরিয়ামে সম্প্রীতি বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আয়োজিত ‘মুক্তিযুদ্ধ, মুজিবনগর সরকার ও সম্প্রীতির বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা এ আহ্বান জানান।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, মুজিবনগর সরকার গঠন না হলে হয়তো দেশ স্বাধীন হত না। সেই মুজিবনগর সরকার কোনো ধর্মের ওপর নয়, বরং বাঙালিদের নিয়ে গঠিত হয়েছে। এখন ধর্মকে আমরা রাজনৈতিকভাবে ব্যাবহার করছি।

অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত সম্প্রীতি বাংলাদেশের আহবায়ক পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বা মুজিবনগর নিয়ে এখনো গবেষণা হয়নি। এ নিয়ে আমাদের আরো কাজ করতে হবে।

ইতিহাসে মার্চ ও ডিসেম্বর মাস প্রাধান্য পায়, পিছিয়ে থাকে এপ্রিল মাস। অথচ এপ্রিল না থাকলে হয়তো ডিসেম্বর আসত না। এটি শুধু স্বাধীনতার লড়াই ছিরো না, এটি ছিলো অসাম্প্রদায়িক জাতিসত্তা গঠনের লড়াই। স্বাধীনতার পরও অনেকেই লড়ছেন বাঙালির জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধে, ধর্মনিরপেক্ষতার বিরুদ্ধে। তারা দেশকে পাকিস্তান বানাতে চায়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. সীতেশ চন্দ্র বাছার, প্রধান আলোচক সম্প্রীতি বাংলাদেশের আহবায়ক পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়। আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূইয়া, কলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. আব্দুল বাছির, ফার্মেসি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ। এতে সভাপতিত্ব করেন সম্প্রীতি বাংলাদেশের ঢাবি শাখার আহবায়ক অধ্যাপক ড. বিমান চন্দ্র বড়ুয়া।

এ ছাড়া পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে আগত অতিথি হিসেবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা নিয়ে নিজেদের অনুভূতি ব্যাক্ত করেন আসাম রাজ্যের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ড. সৌমেন ভারতীয়া ও প্রখ্যাত লেখিকা অধ্যাপক ড. রীতা চৌধুরী।