রাঙামাটি । মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪ , ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

প্রকাশিত: ১৭:৫১, ২ মে ২০২৪

লংগদু প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক ওমর ফারুক মুছার মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক

লংগদু প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক ওমর ফারুক মুছার মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক
ফাইল ছবি

না ফেরার দেশে চলে গেলেন সাংবাদিক ওমর ফারুক মুছা। রাঙামাটির লংগদু উপজেলার বাসিন্দা ওমর ফারুক মুছা, দীর্ঘ তিন দশক ধরে সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৪৭ বছর। মৃত্যুকালে পিতা, মাতা, স্ত্রী, এক ছেলে, এক মেয়ে, ১ ভাই ও ৭ বোনসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে যান। পিতা মোঃ আলী ও মাতা ফরিদা বেগমের ২ ছেলে ও ৭ মেয়ের মধ্যে মুছা ছিলেন সবার বড়। তিনি লংগদু সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও রাঙামাটি সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন। মাধ্যমিক পাশ করার পর দৈনিক গিরিদর্পণ ও সাপ্তাহিক বনভূমির মাধ্যমে সাংবাদিকতা শুরু করেন। দুর্গম পার্বত্যাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার দুর্গমতা সত্ত্বেও সাংবাদিকতার মত কঠিন পেশাকে তিনি বেছে নিয়েছিলেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ছিলেন। চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ বেতার রাঙামাটি কেন্দ্রের লংগদু প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল ৭১-এর লংগদু সংবাদদাতা হিসেবেও কাজ করেছিলেন। এছাড়াও ২০১৩ সাল থেকে অনলাইন দৈনিক পাহাড়২৪ ডটকম ও ২০১৫ সাল থেকে দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম লংগদু উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেন। এছাড়াও তিনি আলোকিত রাঙামাটি লংগদু উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি বিগত এক বছর যাবৎ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। রাতে লংগদু উপজেলার মাইনীতে জানাজা শেষে তাঁর লাশ দাফন করা হবে। সাংবাদিক মুছা ব্যক্তিগতভাবে নির্লোভ ও নির্মোহ ব্যক্তি ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে রাঙামাটি জেলায় বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন শোক জানান। এছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক সাংস্কৃতিক নেতৃবৃন্দ সাংবাদিক ওমর ফারুক মুছার মৃত্যুতে শোক জানান ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।