রাঙামাটি । শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ , ১০ ফাল্গুন ১৪৩০

নিউজ ডেস্কঃ

প্রকাশিত: ১৭:৪১, ৯ জানুয়ারি ২০২৪

কাউখালীতে নির্বাচনে কাজ করায় ৩ আ.লীগ নেতাকে অপহরণের অভিযোগ

কাউখালীতে নির্বাচনে কাজ করায় ৩ আ.লীগ নেতাকে অপহরণের অভিযোগ

রাঙামাটির কাউখালী উপজেলায় আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের পক্ষে কাজ করায় এবং নির্বাচনে ভোটে দেওয়ার অভিযোগে তিন আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। 

সোমবার (৮ জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলার কলমপতি ইউনিয়নের দুর্গম বড় আমছড়ি এলাকা থেকে অস্ত্রের মুখে তাদের অপহরণ করা হয়। খবর জাগো নিউজের।

অপহৃতরা হলেন চাখিয়াই মং মারমা (৩৫), বাদো মারমা (৩৩) ও চিংথোয়াই প্রু মারমা (৩৫)। তারা সবাই কলমপতি ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ তিনজন নৌকার পক্ষে কাজ করছিলেন। কলমপতি ইউনিয়নের দুর্গম বড় আমছড়ি এলাকাটি আঞ্চলিক সংগঠন ইউপিডিএফের নিয়ন্ত্রণাধীন। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ভোট বর্জন করে এলাকায় এলাকায় বার্তাও দিয়েছিল দলটি। যেহেতু তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় কেন্দ্র, সেই কেন্দ্রে ভোট দেওয়ায় ও তাদের নির্দেশ না মানায় ইউপিডিএফ তাদের অপহরণ করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

৭ নম্বর ওয়ার্ডের তারাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার তিন হাজার ৭৪৯ জন।

কলমপতি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমাম উদ্দিন অহপরণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এলাকাটি দুর্গম ও মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকায় পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব হচ্ছে না। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা গেলে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।

কাউখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও কলমপতি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যাজাই মারমা বলেন, অপহৃতদের উদ্ধারের জন্য প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে কাউখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাজিব চন্দ্র কর বলেন, অপহরণের বিষয়টি শুনেছি। তবে কেউ লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করেননি। স্থানীয়দের ধারণা, ইউপিডিএফ অপহরণের এ ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে। আমরা বিষয়টি খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছি।

রোববার (৭ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে কাউখালী উপজেলার তিনটি ভোট কেন্দ্রে কোনো ভোট পড়েনি। ইউপিডিএফ নিয়ন্ত্রিত এসব এলাকায় ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে আসতে দেয়নি বলে সংবাদ পাওয়া গেছে।