রাঙামাটি । শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪ , ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

ব্রেকিং

গভীর রাতে কাপ্তাইয়ের কেপিএমে আগুন, উৎপাদন বন্ধবন্যপ্রাণী বাঁচাতে হলে পরিবেশ ও আবাসস্থল ঠিক রাখতে হবেরাঙামাটিতে ছেলে ধরা সন্দেহে আটক ১বগুড়ায় একই পরিবারের নিখোঁজ ৭ জনকে রাঙামাটিতে উদ্ধারক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের আর্থিক অনুদান দিলো রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদপরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপণের বিকল্প নেই: দীপংকর তালুকদারনারী পাচার চক্রের তিন চাকমা সদস্যকে জেল হাজতে প্রেরণবাঘাইছড়িতে বন্যার পানিতে তলিয়ে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধারটানা বর্ষণে কাপ্তাই হ্রদে পানি বৃদ্ধি, চার ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৬৪ মেগাওয়াটখাগড়াছড়িতে পাহাড়ধস: ৩ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিকতিন দিনের সফরে রাঙামাটি আসছেন রাষ্ট্রপতিরাঙামাটিতে পাহাড় ধসের সর্তকতায় মাইকিং, প্রস্তুত ২৬৭ আশ্রয়কেন্দ্ররাঙামাটিতে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিতবাঘাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২৭ জুলাই, ভোট ইভিএমে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ-

প্রকাশিত: ১৬:১৯, ১০ জুলাই ২০২৪

আপডেট: ১৬:২৭, ১০ জুলাই ২০২৪

বৈষম্যমূলক উপজাতি কোটা বাতিলের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান পিসিসিপি’র

বৈষম্যমূলক উপজাতি কোটা বাতিলের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান পিসিসিপি’র

সাম্প্রদায়িক ও বৈষম্যমূলক উপজাতি কোটা বাতিলের দাবিতে আজ ১০ জুলাই বুধবার সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ পিসিসিপি রাঙামাটি জেলা শাখা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, পিসিসিপি কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো: হাবীব আজম, রাঙামাটি জেলা সাধারণ সম্পাদক মো: তাজুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মো: শহিদুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক মো: শাখাওয়াত হোসেন, রাবিপ্রবি নেতা মো: নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

স্মারকলিপিতে নেতৃবৃন্দ উপজাতি কোটার কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামে বৈষম্যের চিত্র তুলে ধরে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সুষমা উন্নয়ন ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে উন্নয়নের মূলস্রোতে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের জন্য উপজাতি কোটা সুবিধা রাখা হলেও এই অঞ্চলের ছোট ছোট জাতিগোষ্ঠীর লোকজন প্রত্যাশিত সুবিধা পাচ্ছে না। পার্বত্যাঞ্চলে পার্বত্য বাঙালিসহ ১৩টি জাতিগোষ্ঠীর সমান উন্নয়ন নিশ্চিত করতে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি ও সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে বিদ্যমান ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী কোটা কি নতুন করে বৈষম্য তৈরি করছে? তাহলে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে কী আরও প্রান্তিক করে ফেলছে? একচেটিয়া চাকমা সম্প্রদায় কোটাসহ সর্বোচ্চ সকল সুযোগসুবিধা পেয়ে আসছে। আর বঞ্চিত থাকা বাঙালিসহ ১৩টি সম্প্রদায়ের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এই কারণে পার্বত্য অঞ্চলে নতুন করে সশস্ত্র সংগঠন সৃষ্টি হচ্ছে। বর্তমানে বম জনগোষ্ঠী কেন্দ্রিক কেএনএফও চাকমাদের দ্বারা বৈষম্যের কারণে সৃষ্টি হয়েছে বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করে।পার্বত্য চট্টগ্রামে বৈষম্য দূর করে শান্তি ও সম্প্রীতি স্থাপন করতে হলে একতরফা উপজাতি কোটা সম্পূর্ণভাবে বাতিল করতে হবে।

দেশের এক শ্রেণির বুদ্ধিজীবীও শুধুমাত্র পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের অধিকার, অনগ্রসরতা ও পশ্চাত্পদতা নিয়ে গবেষণার মাধ্যমে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের কাছে উপস্থাপন করছে। অগ্রাধিকারের নামে একচেটিয়া ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রার্থীদের নিয়োগের ফলে বঞ্চিত হচ্ছে বাঙালি শিক্ষিত যুবকেরা। শান্তিচুক্তির আগে ও পরে হাজার হাজার পদে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর লোককে নিয়োগ দিয়েছে সরকার, যার মধ্যে একজন বাঙালিও নেই। পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত উপজাতিদের মধ্যে শুধু চাকমা সম্প্রদায়ের হাজার হাজার ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, আইনজীবী, সেনা অফিসার, প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা পর্যন্ত রয়েছে। বিপরীত দিকে পার্বত্য অঞ্চলের বাঙালিরা শতগুণে পিছিয়ে আছে। জেলা পরিষদের অধীনে ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকারের নামে একচেটিয়া উপজাতীয় অদক্ষ যুবক নিয়োগের ফলে যোগ্যতা থাকার পরেও বঞ্চিত হচ্ছে বাঙালি শিক্ষিত যুবকেরা।

তাই সাম্প্রদায়িক ও বৈষম্যমূলক উপজাতি কোটা সম্পূর্ণ বাতিল করতে হবে। যদি সংস্কার করে কোটা চালু রাখতেই হয়, তাহলে কোটা সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিভিন্ন জাতি-গোষ্ঠী-সম্প্রদায়ের মধ্যে বৈষম্য দূর করে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত সকল বাসিন্দাদের জনসংখ্যা অনুপাতে সমান কোটা সুবিধা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে।

কোটা প্রথা চালুর পর থেকে অদ্যাবধি পার্বত্য চট্টগ্রামে কোন সম্প্রদায়ের কতজন কোটা সুবিধা পেয়েছে তার বিস্তারিত তথ্য জনগণের জ্ঞাতার্থে মিডিয়ায় প্রকাশ করতে হবে।

একতরফা বৈষম্যমূলক উপজাতি কোটা বাতিলের দাবিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ পিসিসিপি'র কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনায় আজ তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি দেওয়া হয়।

এছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েও উক্ত স্মারকলিপি প্রদান করবে পিসিসিপি।

সম্পর্কিত বিষয়:

জনপ্রিয়