রাঙামাটি । শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪ , ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

ব্রেকিং

গভীর রাতে কাপ্তাইয়ের কেপিএমে আগুন, উৎপাদন বন্ধবন্যপ্রাণী বাঁচাতে হলে পরিবেশ ও আবাসস্থল ঠিক রাখতে হবেরাঙামাটিতে ছেলে ধরা সন্দেহে আটক ১বগুড়ায় একই পরিবারের নিখোঁজ ৭ জনকে রাঙামাটিতে উদ্ধারক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের আর্থিক অনুদান দিলো রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদপরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপণের বিকল্প নেই: দীপংকর তালুকদারনারী পাচার চক্রের তিন চাকমা সদস্যকে জেল হাজতে প্রেরণবাঘাইছড়িতে বন্যার পানিতে তলিয়ে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধারটানা বর্ষণে কাপ্তাই হ্রদে পানি বৃদ্ধি, চার ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৬৪ মেগাওয়াটখাগড়াছড়িতে পাহাড়ধস: ৩ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিকতিন দিনের সফরে রাঙামাটি আসছেন রাষ্ট্রপতিরাঙামাটিতে পাহাড় ধসের সর্তকতায় মাইকিং, প্রস্তুত ২৬৭ আশ্রয়কেন্দ্ররাঙামাটিতে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিতবাঘাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২৭ জুলাই, ভোট ইভিএমে

নিউজ ডেস্কঃ-

প্রকাশিত: ১০:১০, ৭ জুলাই ২০২৪

পার হতে গিয়ে নড়বড়ে সাঁকোতেই সন্তান জন্ম দিলেন নারী

পার হতে গিয়ে নড়বড়ে সাঁকোতেই সন্তান জন্ম দিলেন নারী

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় হাসপাতালে যাওয়ার পথে একটি বাঁশের ভাঙা সাঁকো। ভ্যান চলাচলের মতো অবস্থাও নেই। বাধ্য হয়ে হেঁটে পার হওয়ার সময় সাঁকোর ওপরই সন্তান প্রসব করেছেন এক নারী।

শনিবার (৬ জুলাই) দুপুরের রৌমারী উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের মাঝিপাড়া গ্রামের সবুজপাড়ায় কদমতলী খালের ওপর থাকা সাঁকোতে এ ঘটনা ঘটে।  বিলকিস খাতুন ওই এলাকার সাইজুদ্দিনের স্ত্রী। তার বাবার বাড়ি রৌমারী সদর ইউনিয়নের সুতিরপার এলাকায়।

স্থানীয়রা জানান, সকালে প্রসব বেদনা উঠলে স্বজনরা তাকে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিতে রওনা হন। পথে নড়বড়ে সেতু পয়ে হেঁটে পার হওয়ার সময় অসুস্থ হয়ে পড়েন বিলকিস খাতুন। পরে সাঁকোতে কন্যা সন্তান প্রসব করেন তিনি।

বিলকিসের বাবা আহমদ আলী জানান, যাদুর চরে আমার মেয়েকে বিয়ে দিয়েছি। সে সন্তানসম্ভবা হওয়ায় তাকে আমার বাড়িতে নিয়ে এসে রেখেছিলাম। মেয়ের প্রসব বেদনা ওঠায় তাকে নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার পথে সাঁকোর ওপর মেয়ে কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছে।

বিলকিসের ভাই সাফি উদ্দিন ও ভাবি আমিনা বেগম বলেন, সকালে প্রসব বেদনা উঠলে বিলকিসকে ব্যাটারিচালিত ভ্যানযোগে হাসপাতালের উদ্দেশে রওনা হন তারা। কিন্তু ভাঙা সাঁকোতে ভ্যান পারাপারের উপায় নেই। হেঁটে পার হওয়াই ঝুঁকি। বাধ্য হয়ে প্রসব বেদনায় কাতর বিলকিসকে হেঁটে সাঁকো পার হতে থাকেন। সাঁকোর মাঝামাঝি স্থানে পৌঁছালে প্রসব বেদনায় আরো তীব্র হলে সেখানেই শুয়ে পড়েন বিলকিস। কিছুক্ষণ পরেই একটি মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। পরে মা ও নবজাতক দুজনেই সুস্থ আছেন।

আব্দুর রাজ্জাক জানান, এই সাঁকোটি দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপোযোগী হলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট দফতর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। এর ফলশ্রুতিতে এ ঘটনা। আমরা চাই এই ব্রিজটি দ্রুত নির্মাণ করা হোক। তাহলে প্রসূতি মা বা অসুস্থ রোগীরা গাড়িতে করে হাসপাতালে যেতে পারবে।

রৌমারী উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সুজাউল সুজা বলেন, এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। ঘটনা শোনার পর আমি নিজেই ঘটনাস্থলে এসেছি। আমরা চাই দ্রুত সাঁকোর জায়গায ব্রিজ নির্মাণ করা হোক।

স্থানীয় শৌলমারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বলেন, কিছুদিন আগে বাঁশের সাঁকোটি ভেঙে যায়। এ কারণে এক প্রসূতি মা সেখানে একটি সন্তান প্রসব করেছেন।

রৌমারী উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মনছুরুল হক বলেন, আমি নতুন যোগদান করেছি। ওই সড়কের বিষয়টি আমার জানা নেই।

জনপ্রিয়