রাঙামাটি । শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪ , ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

ব্রেকিং

গভীর রাতে কাপ্তাইয়ের কেপিএমে আগুন, উৎপাদন বন্ধবন্যপ্রাণী বাঁচাতে হলে পরিবেশ ও আবাসস্থল ঠিক রাখতে হবেরাঙামাটিতে ছেলে ধরা সন্দেহে আটক ১বগুড়ায় একই পরিবারের নিখোঁজ ৭ জনকে রাঙামাটিতে উদ্ধারক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের আর্থিক অনুদান দিলো রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদপরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপণের বিকল্প নেই: দীপংকর তালুকদারনারী পাচার চক্রের তিন চাকমা সদস্যকে জেল হাজতে প্রেরণবাঘাইছড়িতে বন্যার পানিতে তলিয়ে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধারটানা বর্ষণে কাপ্তাই হ্রদে পানি বৃদ্ধি, চার ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৬৪ মেগাওয়াটখাগড়াছড়িতে পাহাড়ধস: ৩ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিকতিন দিনের সফরে রাঙামাটি আসছেন রাষ্ট্রপতিরাঙামাটিতে পাহাড় ধসের সর্তকতায় মাইকিং, প্রস্তুত ২৬৭ আশ্রয়কেন্দ্ররাঙামাটিতে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিতবাঘাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২৭ জুলাই, ভোট ইভিএমে

নিউজ ডেস্কঃ-

প্রকাশিত: ১৬:৩৩, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

২০২৪ সালে রিয়াদের টার্গেট ৭ লাখ 

বাংলাদেশ থেকে আরও বেশি পর্যটক পেতে চায় সৌদি আরব

বাংলাদেশ থেকে আরও বেশি পর্যটক পেতে চায় সৌদি আরব

শুধু মুসলিম ভ্রাতৃত্ববোধের টানেই নয়; অর্থনীতির চাকা আরও বেগবান করতেই ঢাকাকে আরও কাছে পেতে চায় রিয়াদ। হজ, ওমরাহ ও সাধারণ পর্যটকের সংখ্যা বাড়াতে বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে পেট্রোডলারের দেশটি। বিগত দশ বছরের ওমরাহ ও হজের কোটা বিবেচনায় তাদের টার্গেট এখন তার দ্বিগুণ করা। চলতি বছরেই তাদের টার্গেট চার থেকে পাঁচ লাখ যাত্রী। আগামী  বছর ২০২৪ সালেই তা আরও বাড়িয়ে ৭  লাখে উন্নীত করতে চায় সৌদি আরব। ২০৩০ সাল নাগাদ বাংলাদেশ থেকে বছরে ৩০ লাখ পর্যটকের টার্গেট তাদের। সম্প্রতি ঢাকা সফরের সময় এমনই ইঙ্গিত দিয়ে গেছেন সফরকারীরা। সফর শেষে ফিরে যাবার সময় সফরকারীরা বেশ সুস্পষ্টভাবে বলেছেন- সার্বিক বিবেচনায় পর্যটন খাতে সৌদির জন্য বাংলাদেশ হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ বাজার। তাই বাংলাদেশকে ঘিরে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সৌদি আরব।

হাব জানিয়েছে, ঢাকার প্রতি সৌদির এত আগ্রহ অতীতে কখনই ছিল না। এখন হঠাৎ বৈদেশিক মুদ্রার আয় বাড়াতে পর্যটন খাতকে গুরুত্ব দিয়ে ভিসা নীতিতে পরিবর্তন এনেছে তেলসমৃদ্ধ দেশটি। এজন্য তারা বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। বাংলাদেশ থেকে পর্যটকরা যেন সহজে ভিসা আবেদন করতে পারে, সেজন্য  ইতোমধ্যেই চালু করা হয়েছে ই-ভিসা পদ্ধতি। গত ১ মে থেকে ই-ভিসা বা ইলেক্ট্রনিক ভিসা চালুর পর হঠাৎ বেড়ে গেছে সৌদিমুখী যাত্রীর সংখ্যা। কারণ এখন সৌদিতে যেতে হলে আগের মতো কাগজের ভিসা পাওয়ার দীর্ঘসূত্রতায় পড়তে হচ্ছে না। এমনকি যাদের যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, শেনজেনের ভিসা রয়েছে তাদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ই-ভিসা দেবে মুসলিমদের পবিত্রতম তীর্থস্থানের দেশটি।

এ বিষয়ে হাব সভাপতি এম শাহাদত হোসেন তসলিম দৈনিক জনকণ্ঠকে বলেন, বাংলাদেশ এখন সৌদিসহ গোটা মধ্যপ্রাচ্যের কাছেই বেশ আকর্ষণীয়। শুধু যে বিনিয়োগের টানেই সেটা নয়; আমাদের জনশক্তির মধ্যপ্রাচ্যে বেশ কদর রয়েছে। সম্প্রতি সৌদি প্রতিনিধিদল ঢাকা সফরের সময় তাদের অনেকের সঙ্গেই আমার ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় অনেক তথ্য পেয়েছি। হজ, ওমরাহর পাশাপাশি এখন পর্যটকদের আগমন নিরবচ্ছিন্ন করতে বাংলাদেশের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ বাড়াতেও উদ্যোগ নিয়েছে রিয়াদ। এজন্য গত ২৩ আগস্ট বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিমান চলাচল সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। এ চুক্তির আওতায় দুই দেশের মধ্যে ফ্লাইট সংখ্যা বাড়ানো হবে। এ ছাড়া সৌদির অপর এয়ারলাইন্স ফ্লাই নাসের সিডিউল ফ্লাইট আসছে খুব শীঘ্রই। এতে সৌদি আরবের বিভিন্ন গন্তব্যে সরাসরি যাওয়ার সুযোগ পাবেন বাংলাদেশীরা। আগে সৌদির জেদ্দা, রিয়াদ, দাম্মাম ও মদিনা এই চারটি বিমানবন্দরে বাংলাদেশ থেকে ফ্লাইট পরিচালিত হতো। নতুন চুক্তির ফলে বাংলাদেশের যেকোনো এয়ারলাইন্স যাত্রী নিয়ে সৌদি আরবের যেকোনো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করতে পারবে। নতুন সই করা সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী, সৌদি আরবে পরিচালিত ফ্লাইটের ফ্রিকোয়েন্সিও বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে নির্ধারিত ৪৯টি যাত্রী ও কার্গো ফ্লাইট ফ্রিকোয়েন্সির পরিবর্তে ৪৯টি যাত্রী ফ্লাইট ফ্রিকোয়েন্সি সুবিধা পাবে এয়ারলাইন্সগুলো। এর সঙ্গে যোগ হতে যাচ্ছে ফ্লাই নাসের সিডিউল ফ্লাইট।

জানা গেছে, ওমরাহ, হজ ও পর্যটন- এই তিন ক্যাটাগরিতে চলতি বছর কমপক্ষে চার লাখ, আগামী বছর তার দ্বিগুণ না হলেও কমপক্ষে ৭ লাখ যাত্রীর টার্গেট করেছে সৌদি আরব। এজন্য বিভিন্ন পদক্ষেপের মধ্যে অন্যতম ভিসা প্রাপ্তি সহজীকরণ। এ জন্য ২০২২ সালে সারাবিশ্ব থেকে হজ ও ওমরাহ পালনকারীদের ভিসা ও ভ্রমণ সংক্রান্ত বিষয়ে ডিজিটাল  প্ল্যাটফর্ম নুসুক চালু করে সৌদি আরব। এটি দেশটির সরকারের প্রথম অফিসিয়াল প্ল্যানিং, বুকিং এবং এক্সপেরিয়েন্স প্ল্যাটফর্ম; যার লক্ষ্য হচ্ছে মক্কা ও মদিনায় ওমরাহ এবং হজ পরিকল্পনায় সাহায্য করা। সারাবিশ্বের ভ্রমণকারীরা তাদের ভ্রমণ পরিকল্পনা করতে পারবেন নুসুকে। এতে ভিসা আবেদন থেকে শুরু করে ফ্লাইট ও হোটেল বুকিং সুবিধাও রয়েছে। নুসুককে জনপ্রিয় করতে বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে সৌদি আরব। গত ২৪ আগস্ট ঢাকায় সৌদি সরকারের ফ্ল্যাগশিপ উদ্যোগ নুসুককে পরিচিত করতে প্রথম রোড শো’র আয়োজন করা হয়। রোড শোতে যোগ দেন ড. তৌফিগ আল-রাবিয়াহ, নুসুকে প্রেসিডেন্ট আলহাসান আলদাববাগসহ সৌদির সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। বাংলাদেশে হজ, ওমরাহ, ট্যুর অপারেটর, ট্রাভেল এজেন্সি, এয়ারলাইন্স প্রতিনিধিদের এ আয়োজনে আমন্ত্রণ জানানো হয়। যা ইতোমধ্যেই নিশ্চিত করা হয়েছে। পাশাপাশি  ওমরাহ ভিসার মেয়াদ ৩০ দিন থেকে বাড়িয়ে ৯০ দিন করেছে সৌদি।

আগে ওমরাহ ভিসায় সৌদি ভ্রমণ করা যেত না। এখন ওমরাহ ভিসায় পুরো সৌদি ভ্রমণ করা যাবে। আগে নিষিদ্ধ থাকলেও এখন নারীরা মাহরাম ছাড়া মক্কা ও মদিনায় যেতে পারবেন। আগে ওমরাহ ভিসা ছাড়া সৌদি থেকে জমজমের পানি আনা যেত না। নতুন চুক্তি অনুযায়ী সব ভিসাধারীই জমজমের পানি আনতে পারবেন। দেশটিতে বর্তমানে ৩০ লাখ বাংলাদেশী কর্মরত। তাদের পরিবারের সদস্যদের সৌদি আরবে ভ্রমণের জন্য নিয়ে যেতে পারেন, সেজন্য ফ্যামিলি ভিজিট ভিসার পদ্ধতিও সহজ করা হয়েছে। এ ঘোষণা দিয়ে গেছেন সফরকারীরা।

পর্যটন খাতে গতি বাড়াতে ট্রানজিট যাত্রীদের জন্যও সুবিধা বাড়িয়েছে সৌদি সরকার। বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে অনেকেই সৌদি আরবের বিভিন্ন এয়ারলাইন্স ব্যবহার করে যাতায়াত করেন। ট্রানজিট যাত্রীদের সৌদি আরবে ভ্রমণে আগ্রহী করতে ট্রানজিটের সময় যাত্রীদের চার দিনের ভিসা দেবে দেশটি। এই ট্রানজিট সময়ে যাত্রীরা সৌদি আরবে ওমরাহ পালন করতে পারবেন।

ঢাকা সফররত নুসুক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফাহ্দ হামিদাদ্দিন সৌদির ভিশন ২০৩০ ও পর্যটন প্রসঙ্গে বলেন, বাংলাদেশ আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। এ বছর এখন পর্যন্ত সৌদিতে তিন লাখ ৩২ হাজার বাংলাদেশী ভ্রমণ করেছেন। আমরা আরও বাংলাদেশীকে স্বাগত জানাতে চাই। বাংলাদেশীদের ওমরাহ পালনের স্বপ্ন পূরণে সহযোগী হতে চাই। ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক সমৃদ্ধ সৌদিতে স্বাগত জানাতে অপেক্ষায় থাকব। সৌদির ভিশন ২০৩০ অর্জনের জন্য বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ।

এদিকে  কবে নাগাদ সৌদি আরবের অপর এয়ারলাইন্স ফ্লাই নাস ঢাকায় নিয়মিত সিডিউল ফ্লাইট চালু করবে জানতে চাইলে হাব সভাপতি শাহাদত হোসেন তসলিম দৈনিক জনকণ্ঠকে বলেন, এবারও হজে অপর দুটো এয়ারলাইন্স বিমান ও সাউদিয়ার তুলনায় ফ্লাই নাস বেশ ভাল সার্ভিস দিয়ে সুনাম কুড়িয়েছে। এটা হজযাত্রীদের কথা। এখন সবাই চাচ্ছে নিয়মিত ঢাকা থেকে ফ্লাই নাস চালু করা  হোক। এখন কিন্তু বাস্তবতার তাগিদেই এটা চালু করতে হবে। কারণ সৌদি আরব যেভাবে বাংলাদেশের ওমরাহ ও হজের পাশাপাশি এখন পর্যটনের দিকে নজর ফেলেছে তাতে এয়ারলাইন্সের পরিধি বাড়াতেই হবে। মানুষকে অপশন দিতে হবে। কে কোন্ এয়ারে যাবে এটা তাদেরকে বাধ্য না করে বরং অপশন দিতে হবে তাদেরকে বাছাইয়ের। সেজন্যই আমরা চেষ্টা করছি আগামী অক্টোবরের দিকেই ঢাকা থেকে সিডিউল ফ্লাইট করার। কারণ  আগামী বছরে সৌদি আরবের টার্গেটকৃত ৬/৭ লাখ যাত্রী যদি বহন করতে হয় তাহলে বিমান সাউদিয়ার  পক্ষে সেটা সামাল দেওয়া সম্ভব নয়। পরিস্থিতিই বাধ্য করবে থার্ড ক্যারিয়ার বা ফ্লাই নাসের মতো এয়ার চালু করতে।

জনপ্রিয়