রাঙামাটি । শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪ , ৩ শ্রাবণ ১৪৩১

রাঙামাটি (লংগদু) প্রতিনিধিঃ-

প্রকাশিত: ১৪:৪১, ৩০ আগস্ট ২০২৩

আপডেট: ১৪:৪১, ৩০ আগস্ট ২০২৩

প্রশাসনের আশ্বাস

​​​​​​​করল্যাছড়ি আরএস উচ্চ বিদ্যালয়ে পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের স্কুল বর্জন প্রত্যাহার

​​​​​​​করল্যাছড়ি আরএস উচ্চ বিদ্যালয়ে পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের স্কুল বর্জন প্রত্যাহার

রাঙামাটির লংগদু উপজেলার করল্যাছড়ি রশিদ সরকার (আরএস) উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিমকে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করার দাবীতে পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের অংশ বিদ্যালয় বর্জন কর্মসূচী লংগদু উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্থগিত করা হয়েছে।

এই উপলক্ষে মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) বিকালে উপজেলার করল্যাছড়ি রশিদ সরকার উচ্চ বিদ্যালয় শ্রেণি কক্ষে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মা ও অভিভাবকদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ জিয়াউর রহমান মেম্বার এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, লংগদু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ সুলতান আহমদের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, লংগদু থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইকবাল উদ্দিন, লংগদু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ সেলিম, সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাশ বাবু, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মাকসুদুর রহমান, আটারকছড়া ইউপি চেয়ারম্যান অজয় মিত্র চাকমা, লংগদু ইউপি চেয়ারম্যান বিক্রম চাকমা (বলি) প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা এখলাছ মিঞা খান, প্রেসক্লাবের সভাপতি ওমর ফারুক মুছা, আঞ্চলিক সংগঠনের স্থানীয় নেতা অলংগ চাকমাসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বিদ্যালয়ের অভিভাবক বৃন্দ।

এ সময় করল্যাছড়ি রশিদ সরকার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিম বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলার আসামি হলে নিম্ন আদালত তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ ও দশলক্ষ টাকা জরিমানা করেছেন। এ মামলার আসামি প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিম উচ্চ আদালতে আপিল করে জামিনে আসলে পাহাড়িরা লংগদু, রাঙামাটিসহ বিভিন্ন জায়গায় মানববন্ধন করে। এমতাবস্থায় উদ্ভুদ্ধ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রশাসন এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছে।

সভায় প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহীম যাতে আর বিদ্যালয়ে চাকুরি করতে না পারেন তার জন্য তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করার করা হয়। এই তদন্ত কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করবেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এসব সিদ্ধান্ত গ্রহণে সন্তুষ্ট হয়ে আন্দোলনকারীরা তাদের পরবর্তী সকল কর্মসূচী স্থগিত করবে বলে আশ্বস্ত করেন আন্দোলনকারীদের অভিভাবকগণ।

উল্লেখ্য, গত ২০২০ সালে বিদ্যালয়ের এক সাবেক পাহাড়ী ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেন ওই ছাত্রীর মা।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিম বর্তমানে উচ্চ আদালত থেকে তিন মাসের অন্তরবর্তীকালীন  জামিনে আছেন।

সম্পর্কিত বিষয়:

জনপ্রিয়